ওয়েবসাইট স্লো হওয়ার কারণ এবং ফাস্ট করার উপায় সমূহ জেনে নিন

আমাদের বর্তমানে ওয়েবসাইটের বিভিন্ন সমস্যাগুলো মধ্যে সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো ওয়েবসাইট স্লো হয়ে যাওয়া। বিভিন্ন কারণে আমাদের ওয়েব সাইট স্লো হয়ে যায় আমাদের ওয়েব সাইটে প্রবেশ করতে গেলে লোডিং হইতে অনেক সময় নেয় আজ আমরা যানবো ওয়েবসাইট স্লো হওয়ার কারণ এবং ফাস্ট করার উপায় সম্পর্কে আলোচনা করব –

একটি ওয়েব সাইটের দ্রুত গতি প্রবেশ এর ক্ষেত্রে ওয়েব সাইটের লোডিং স্পিড ফাস্ট হওয়া অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কারণ কোন ভিজিটর যখন আপনার ওয়েব সাইটে ভিজিট করে তখন আপনার ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিডের কারণে আপনার ওয়েব সাইটি অনেক দ্রুত তাদের সামনে আসবে যার ফলে আপনার ওয়েব সাইটের ভিজিটররা ওয়েব সাইট এর সার্ভিস সম্পর্কে জানতে পারবে।

ওয়েবসাইট স্লো হওয়ার কারণ সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলঃ

সাধারণত একটি ওয়েব সাইটের জন্য ইমেজ সাইজ সর্বোচ্চ ৫০০-৬০০ (standard) kb মধ্যে থাকা ভালো, যদি ইমেজ গুলো বেশী সাইজ এর হয় তাহলে লোডিং টাইম বেশী লেগে য়ায়। আর যখন ওয়েবসাইটে অধিক ইমেজ হয় তখন ওয়েব সাইটের ইমেজ সাইজ সীমার মধ্যে থাকে না, ইমেজ সাইজ বেশী হয়ে যায়। যার ফলে ওয়েব সাইট লোডিং এর ক্ষেত্রে টাইম বেশি টাইম লাগে এবং ওয়েব সাইট তখন স্লো হয়ে যায়।

আমার যখন অয়েব বানানোর চিন্তা করি তাখন অনেকসময় খরচ কমানোর জন্য আমরা নিম্নমানের ওয়েব হোস্টিং কোম্পানির সার্ভিস ব্যবহার করি যার ফলে ওয়েবসাইট লোডিং স্পিড স্লো হয়ে যায়। এধরনের হোস্টিং কোম্পানী গুলোতে সাধারনত ওভারলোডেড সার্ভার থাকে সেখান থেকে শেয়ার্ড হোস্টিং বিভিন্ন ব্যবহারকারীদের মধ্যে শেয়ারের কারণে ওয়েব সাইট ধীরে ধীরে স্লো হয়ে যায়।

আমারা একটি অয়েব সাইট তৈরি করতে গেলে অনেক প্লাগিন ব্যবহার করতে হয় তখন আমাদের ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড কম হওয়ার একটি অন্যতম কারন। অনেকসময় দেখা যায় যে, আমার আমাদের অয়েব সাইট এর স্পিড বাড়ানোর জন্য লোডিং স্পিড অনেক প্লাগিনস ওয়েবসাইটে ইন্সটল করে রাখি বা সেগুলোর কাজ শেষ হয়ে গেলেো সেগুলো আমরা ডিলিট করি না। ডিলিট না করা এই প্লাগিনস গুলো ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড কমিয়ে দেয়। তাই আমাদের কে ওয়েবসাইটের লোডিং স্পিড ফাস্ট রাখতে লোডিং স্পিড প্লাগিনস ডিলিট করে দিতে হবে।

ওয়েবসাইট ফাস্ট করার উপায় সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলঃ

আমাদের কে ওয়েব সাইট এর লোডিং এর সময় কমানোর ক্ষেত্রে ওয়েবসাইটে যতটা সম্ভব জাভাস্ক্রিপ্ট কম ব্যবহার করা এবং ব্যবহারের ক্ষেত্রে ফাইল মিনিফাই করা, যাতে করে সেই ফাইল গুরোর সাইজ যেন কম হয়। এছাড়া ওয়েব সাইটের ইমেজ কে compress করতে হবে।

আমাদের কে ওয়েবসাইট তৈরির আগেই উচিত ভাল-মানের হোস্টিং-কোম্পানির সার্ভিস সম্পর্কে যাচাই করে সার্ভিস ক্রয় করা। একটি ভালো মানের হোস্টিং অনেক ফাস্ট থাকে।

আরো বিস্তারি পরের টিউন এ যানাবো। যদি টিউন টি আপনার ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই একটি জোসস দিবেন। আর টিউন সম্পর্কে আপনার যদি কোন মন্তব্য থাকলে তাহলে টিউমেন্ট করে আমাকে জানাবেন। আমার সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *